Apan Desh | আপন দেশ

কিশোরী সৌদি গেলেন একা ফিরলেন সন্তান আর নিপীড়নের গল্প নিয়ে

আফজাল বারী

প্রকাশিত: ০০:২৩, ৬ জানুয়ারি ২০২৩

আপডেট: ০০:২৬, ৬ জানুয়ারি ২০২৩

কিশোরী সৌদি গেলেন একা ফিরলেন সন্তান আর নিপীড়নের গল্প নিয়ে

বিধি মেনে ছবিটি প্রকাশ করা হলো না

কৃষক বাবার পরিবারে স্বচ্ছলতা আনার বাসনা ছিল তার। কিন্তু বয়স তখন মাত্র ১৫। ভাগ্য বদলের আশা বুকে নিয়ে সৌদি আরবে পাড়ি জমিয়েছিলেন। গেলেন একা কিন্তু ফিরলেন ফুটফুটে কন্যা সন্তান আর নিপীড়নের মির্মম বর্ণনা নিয়ে। মানসিক ভারসাম্য হারানো কিশোরী গর্ভের শিশুসহ আশ্রয় নিলের ব্রাকের সেইফ হোমে। 

মাঝে কয়েক বছর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায়, বাবা-মা ধরেই নিয়েছিল বেঁচে নেই তাদের আদরের কন্যা। কিন্তু, সম্প্রতি ফিরে এসেছেন তিনি। সাথে ফুটফুটে একটি শিশু সন্তান। একজনকে সামলাতে হিমশিম খাওয়া পরিবারটি এখন বেকায়দায় কন্যা ও তার সন্তান নিয়ে।

ধরে নিলাম ভুক্তভোগী এ নারীর নাম বকুল। দালালদের প্ররোচনায় মাত্র ১৫ বছর বয়সে, ২০১৫ সালে গিয়েছিলেন সৌদি আরবে। চার মাস না যেতেই সেখানে তার ওপর শুরু হয় শারীরিক-মানসিক নির্যাতন। একটা পর্যায়ে পরিবারের সাথেও যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় বকুলের। তার বাবা-মা ধরেই নিয়েছিলেন, তাদের মেয়ে হয়তো আর বেঁচে নেই।

ভুক্তভোগীর বাবা বললেন, দালাল আমাকে বলেছিল যে- তোর মেয়ে ওখানে গিয়ে বাসার কাজ করে তোকে টাকা পাঠাবে। ও যাওয়ার পর ৪ মাসের বেতন পাঠিয়েছিলো। এরপর আর যোগাযোগ ছিল না। আমি দালালকে বললাম আমার মেয়েকে ফিরিয়ে এনে দেয়ার জন্য। দালাল শুধু বলতো- দুই মাস পর আসবে। এই বলতে বলতে আজ ১৫ বছর পার হয়েছে।

হ্যা বকুল এসেছেন- তবে একা নয়, সৌদি আরব থেকে ফিরেছেন অবুঝ, নিষ্পাপ এক সন্তান নিয়ে। পৃথিবীর নিষ্ঠুরতা টের পেতে আরও ক’বছর লাগবে তার। গত সপ্তাহে ঢাকা এলেও বকুলের সাথে নেই কোনো পাসপোর্ট। মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে, বুঝিয়ে বলতে পারেননি কিছুই।

পরে, এপিবিএন বেসরকারি সংস্থা ব্রাকের শরণাপন্ন হলে, তারা তথ্য-বিশ্লেষণ করে বের করে এই নারীর নাম-ঠিকানা। কর্মকর্তারা জানান, শারীরিক নির্যাতনের পর গর্ভধারণের বিষয়টি নিশ্চিত হলে, সৌদি মালিকরা নানা ছুঁতোয় এসব নারীকে পাঠিয়ে দেয় সেখানকার সফর জেলে। সেখানেই সন্তান প্রসব করেন বকুল। 

এ প্রসঙ্গে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের সেক্টর স্পেশালিস্ট এম রায়হান কবির আপন দেশ ডটকম’কে বলেন, সৌদি আরবে যাওয়ার পর সে ওখানে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়, অন্তসত্তা হয়। ওই সময়ই তার মালিক তাকে কোনো একটা অভিযোগে জেলে পাঠিয়ে দেয়। ওই জেলেই সন্তান প্রসব করে সে। এই মুহূর্তে মানসিকভাবে খুবই নাজুক অবস্থায় আছে সে। সত্যি বলতে, সে নিজেই একটা বাচ্চা। আরেকটা বাচ্চাকে সামলানোর অবস্থায় সে নেই।

বকুলের বাবা, দালাল এবং রিক্রুটিং এজেন্সি মেসার্স বি.এস ইন্টারন্যাশনাল শাস্তি চেয়েছেন। বকুল ও তার সন্তানের দায়িত্ব নিয়েছে ব্র্যাকের সেইফ হোম।

আপন দেশ ডটকম/ সবুজ

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়