Apan Desh | আপন দেশ

ওয়ান ব্যাংকে আমানত ছাড়াই ঋণ, দীর্ঘ হচ্ছে অনিয়মের তালিকা

বিশেষ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৩:৪২, ২১ মার্চ ২০২৩

আপডেট: ০৯:৪৫, ২২ মার্চ ২০২৩

ওয়ান ব্যাংকে আমানত ছাড়াই ঋণ, দীর্ঘ হচ্ছে অনিয়মের তালিকা

ফাইল ছবি

আগ্রাসীভাবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ঋণ সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি খাতের ওয়ান ব্যাংক। হু হু করে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। ব্যাপক ঋণ অনিয়মে জড়িয়ে পড়েছে ব্যাংকটি। জামানত ছাড়াই কেবল করপোরেট গ্যারান্টি ও ব্যক্তিগত গ্যারান্টির বিপরীতে ঋণ দিয়েছে ব্যাংটি। এদিকে নানা কারণে গত ডিসেম্বরে ওয়ান ব্যাংককে ‘দুর্বল ব্যাংক হিসেবে চিহ্নিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থার পরামর্শ আমলেই নিচ্ছে না। ঋণের মান দেখা হচ্ছে না। ২০১৯ সাল শেষে ব্যাংকটিতে খেলাপি ঋণ ছিল ১ হাজার ৮৫৪ কোটি টাকা। গত বছরের ডিসেম্বর শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকায়। অর্থাৎ তিন বছরে ব্যাংকটিতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৮৩১ কোটি টাকা।

সূত্র জানায়, সুশাসনসহ নানা ঘাটতিসহ বেশ কয়েকটি কারণে ২০২২ সালের ডিসেম্বরে ওয়ান ব্যাংককে ‘দুর্বল’ ব্যাংক হিসেবে চিহ্নিত করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এরপরে ব্যাংকটিতে নিবিড় তদারকির জন্য সমন্বয়ক নিয়োগ দেয়া হয়। পরিচালনা পর্ষদ ও নির্বাহী কমিটির প্রতিটি সভার আগে সমন্বয়ক ব্যাংক থেকে পাঠানো স্মারক পর্যালোচনা করে এমডিকে নিজের মতামত ও পরামর্শ দেন। সমন্বয়ক নিয়োগের পর পর্ষদের বৈঠক হয় গত ২৩ জানুয়ারি। এ সভায় সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে বেসরকারি খাতের এই ব্যাংকটি সমন্বয়কের অনেক পরামর্শই মানেনি।

যোগাযোগ করা হলে ওয়ান ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঞ্জুর মফিজ আপন দেশকে বলেন, বিষয়গুলো নিয়ে কোনো কথা বলতে চাচ্ছি না। এসব বিষয়ে যা বলার তা আমরা বাংলাদেশ ব্যাংককে বলেছি।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের আপত্তি থাকার পরেও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে এক হাজার কোটি টাকার বেশি ঋণ সুবিধা দিয়েছে ওয়ান ব্যাংক। নতুন সুবিধা দেয়ার আগে পুরনো সমস্যা সমাধানেরও পরামর্শ দেয় সমন্বয়ক। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের সেই পরামর্শ উপেক্ষা করে ব্যাংকটি। ঋণ অনিয়মে সৃষ্টি হয়েছে বিপত্তি। এতেই বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে দুর্বল এই ব্যাংকটিকে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ওয়ান ব্যাংকের সমস্যা সমাধানে বেশ কয়েকবার বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠক হয়। বৈঠকে প্রতিটি সমস্যার সমাধানে পৃথকভাবে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেয় ব্যাংকটি। এরপরেও প্রতিশ্রুতি পরিপালনে ব্যর্থ হয়েছে তারা। অনিয়ম করলে যেকোনো ব্যাংকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওয়ান ব্যাংকের প্রিন্সিপাল শাখার গ্রাহক নোমান টেক্সটাইল মিলস। এই গ্রাহকের ক্ষেত্রে সমন্বয়কের পরামর্শ ছিলো, বকেয়া ১৯ কোটি ৫৪ লাখ টাকা আদায় এবং ৭০ কোটি টাকার ওভার ড্রাফট (ওডি) সুবিধা ৫০ কোটি টাকায় নামিয়ে আনার আগের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে গ্রাহকের ঋণ নবায়ন করতে হবে। তবে সমন্বয়কের পরামর্শও ওয়ান ব্যাংক আমলে নেয়নি বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

সমন্বয়কের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ওয়ান ব্যাংকের গুলশান নর্থ শাখার গ্রাহক প্রসাধনী উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান রিমার্ক এইচবি লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটিকে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে বন্ধকি সম্পত্তির অতিরিক্ত না দেয়ার পরামর্শ দেন সমন্বয়ক। এখানেও প্রশ্নের মুখোমুখি ব্যাংকটি। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা না মেনে রিমার্ক এইচবিকে ১৩ কোটি টাকার সম্পদ জামানতের বিপরীতে ৬৭ কোটি টাকার ঋণ দেয়া হয়।

আরও পড়ুন<>মতিঝিলে ইসলামি ব্যাংকের প্রায় ৭১শতক জমি বিক্রি হলো ১১০ কোটি টাকায়!

ব্যাংকটির উত্তরা শাখার গ্রাহক ডার্ড কম্পোজিট টেক্সটাইলে একটি সিন্ডিকেটেড ঋণ রয়েছে। ২০২১ সাল পর্যন্ত ফান্ডেড-নন-ফান্ডেড মিলে ওয়ান ব্যাংকে গ্রুপটির ঋণ ছিল ২৯৩ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের ঋণের বিপরীতে বন্ধকি সম্পত্তিতে এখনও ব্যাংকের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়নি। অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য গ্রাহক এর আগে আটবার সময় নিয়েও তা করেননি। এখন আরও ছয় মাস সময় চেয়েছে। তবে এতে আপত্তি জানান সমন্বয়ক। একইসঙ্গে বন্ধকি সম্পত্তিতে অধিকার প্রতিষ্ঠায় ব্যাংককে উদ্যোগী হওয়ার পরামর্শ দেন সমন্বয়ক। তবে সেই পরামর্শ না মেনে ৩০ জুলাই পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে।

বলা হয়, ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসির অনুকূলে ৩২৫ কোটি টাকার ঋণ নবায়নে যথাযথ জামানত সংরক্ষণ এবং ঋণের সর্বশেষ ‘শ্রেণিমান নিশ্চিত হওয়ার পরামর্শ দেন সমন্বয়ক। এই ঋণের ক্ষেত্রেও পরামর্শ না মেনে অনুমোদন দেয়া হয়। ওয়ালটন হাই-টেকের আগের নেয়া ঋণ খেলাপি (সাব স্ট্যান্ডার্ড) হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী, খেলাপি ঋণ নবায়নের কোনো সুযোগ নেই। নিয়মিত ঋণেই কেবল নবায়ন করে সময় বাড়ানো যায়।

এছাড়া ব্যাংকটির গুলশান-১ শাখার গ্রাহক পূর্বাণী ইয়ার্ন ডায়িং ও পূর্বাণী সিনথেটিক স্পিনিংয়ের মাত্র ১ কোটি ১৭ লাখ টাকার সহায়ক জামানতের বিপরীতে ৫৮ কোটি টাকার ঋণ নবায়ন করা হয়। নারায়ণগঞ্জ শাখার গ্রাহক পিএন এন্টারপ্রাইজের মাত্র ১১ কোটি ১৮ লাখ টাকার জামানতের বিপরীতে ২৫ কোটি টাকার ঋণ নবায়ন করা হয়েছে। এক্ষেত্রেও পর্যাপ্ত জামানত নিশ্চিতের পরামর্শ দেন সমন্বয়ক।

সূত্র আরও জানায়, বনানী শাখার গ্রাহক ন্যাশনাল পলিমার ইন্ডাস্ট্রিজের ঋণ ২৪ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৭ কোটি টাকা করার আবেদন এসেছে। এ প্রতিষ্ঠানের আগের বকেয়া ২ কোটি ৮৯ লাখ টাকা সমন্বয়ের পর প্রস্তাব অনুমোদনের পরামর্শ দেন সমন্বয়ক। সমন্বয়কের এসব পরামর্শ যথাযথভাবে পরিপালন হচ্ছে কিনা, প্রতিবেদনে তা যাচাই করতে বলা হয়েছে। এছাড়া জামানত ছাড়াই এডিসন পাওয়ার বাংলাদেশ নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ২৫ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে। স্থাবর সম্পত্তি ছাড়া কেবল করপোরেট গ্যারান্টি ও ব্যক্তিগত গ্যারান্টির বিপরীতে এ ঋণকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে মত দেন সমন্বয়ক।

আপন দেশ/এবি

মন্তব্য করুন # খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, আপন দেশ ডটকম- এর দায়ভার নেবে না।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

শীর্ষ সংবাদ:

কালশী ট্রাফিক বক্সে আগুন দিয়েছে আন্দোলনরত অটোরিকশা চালকরা বিএনপি নেতা ইশরাক কারাগারে মিরপুরে পুলিশ-অটোরিকশা চালকদের সংঘর্ষ, পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ভ্যাট বসলে মেট্রোরেলের সুনাম নষ্ট হবে: ওবায়দুল কাদের বান্দরবানের রুমায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিনজন কেএনএ সদস্য নিহত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তরুণদের উদ্যোক্তা হতে বললেন গুরুত্বপূর্ণ সফরে ঢাকায় আসছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওং রাজধানীর আগারগাঁও ও মিরপুর ১০ নম্বরে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ, মেট্রো স্টেশনের প্রবেশপথে তালা পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয় করেছেন বাবর আলী ঢাকাসহ ১০ অঞ্চলের উপর দিয়ে ৬০ কিমি বেগে বজ্রবৃষ্টির শঙ্কা জো বাইডেনের ‘ড্রাগ টেস্ট’ করতে বললেন ডোনাল্ড ট্রাম্প লিওনেল মেসির ইন্টার মায়ামি হারাল ডিসি ইউনাইটেডকে