Apan Desh | আপন দেশ

জিআইবি নিয়ে বিনিয়োগকারীদের ভাবনা

মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান

প্রকাশিত: ১৮:৪৩, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

আপডেট: ১৯:০৫, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

জিআইবি নিয়ে বিনিয়োগকারীদের ভাবনা

ফাইল ছবি

আর্থিকখাতে গত চার বছর ধরে খরা যাচ্ছে। এর মধ্যেও গ্লেবাল ইসলামি ব্যাংক (জিআইবি) পিএলসি বিনিয়োগকারীদের এখন পর্যন্ত নিরাশ করেনি। শেয়ার বাজারে তালিকাভুক্তির পরেই চতুর্থ প্রজন্মের ব্যাংকটি বিনিয়োগকারীদের সন্তষজনক ডিভিডেন্ড দিয়েছে। ব্যাংকের প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) বেড়েছে। মাসের ব্যবধানে বেড়েছে শেয়ার দরও। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্রটি জানিয়েছে, ব্যাংকটি ২০২২ সালে বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দেয়। যার মধ্যে ক্যাশ ডিভিডেন্ড ৫ শতাংশ এবং স্টক ডিভিডেন্ড ৫ শতাংশ।

সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মতে, গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংক বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশা পূরণের ক্ষমতা রাখে। ব্যাংক খাতের অধিকাংশ কোম্পানি খারাপ অবস্থায় রয়েছে। সেতুলনায় গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংক যথেষ্ট ভালো করছে। তাদের বিশ্বাস ব্যাংকটি আগামীতেও ভালো করবে।

গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ব্যাংকটিতে বর্তমানে রিজার্ভে রয়েছে ৩০৯ কোটি টাকা। মাসের ব্যবধানে ব্যাংকটির শেয়ার দর বেড়েছে ০ দশমিক ৮০  টাকা। শতাংশের হিসেবে বেড়েছে ১০ দশমিক ২৫ শতাংশ। গত ২১ জানুয়ারি ব্যাংকটির শেয়ার দর ছিল ৭ টাকা ৮০ পয়সা। আর ২৫ ফেব্রুয়ারি শেয়ার দর এসে দাঁড়িয়েছে ৮ টাকা ৬০ পয়সা। ২০২৩ সালের প্রথম ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর, ২০২৩) ব্যাংকের নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো পার শেয়ার (এনওসিএফপিএস) ঋণাত্বক ৯ দশমিক ৬৩ টাকা হয়েছে। এর আগের বছরের একই সময়ে যা ছিল ৩ দশমিক ২৮ টাকা।
ব্যাংকটি বলছে, গ্রাহকদের আমানতে মুনাফা বাড়ানোর ফলে এনওসিএফপিএস কমেছে। এদিকে আইপিওর মাধ্যমে পরিশোধিত মূলধন বাড়ানো এবং স্টক ডিভিডেন্ড প্রদান করায় বিনিয়োগকারীদের শেয়ার প্রতি এনএভি বেড়েছে।

আরও পড়ুন<<>>  হতাশ করেছে বিদায়ী সপ্তাহ  

ডিএসই সূত্র বলছে, ব্যাংকটির সর্বশেষ সমাপনী শেয়ার দর ছিল ৮ টাকা ৬০ পয়সা। ব্যাংকটির অনুমোদিত মুলধন ২ হাজর কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৯৮৭ কোটি টাকা। ২০২২ সালের ১৬ নভেম্বর শেয়ার বাজারে লেনদেন শুরু করে। ব্যাংকটির শেয়ার সংখ্যা মোট ৯৮ কোটি ৭৪ লাখ ৩৯ হাজার ৬৮৭টি। যার মধ্যে ২০২৪ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সাধারণ বিনিয়োগকারীদের শেয়ার রয়েছে ২৬ দশমিক ০৬  শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার রয়েছে ২৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ। এবং স্পন্সরদের শেয়ার রয়েছে ৪৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুর রাজ্জাক জানান, ব্যাংক খাতে কিছু ব্যাংক ভালো করছে। তার মধ্যে গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংক একটি। ব্যাংকটির পারফর্মেন্সে এখন পর্যন্ত সাধারণ বিনিয়োগকারীরা সন্তুষ্ট। তবে ব্যাংকটিকে তাদের এ সাফল্য ধরে রাখতে হবে। ডিভিডেন্ডের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। তবেই ব্যাংকটির প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা আরও বৃদ্ধি পাবে।

গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংকের সচিব মো. মানজুর হোসেইন আপন দেশকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক ও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) গাইডলাইন পরিপালন করে জিআইবি। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের বিষয়টি জিআইবি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে। ব্যাংকের ভীত যথেষ্ট শক্তিশালী আছে। করপোরেট সোশ্যাল রেসপন্সেবিলিটি (সিএসআর) খাতে জিআইবি অবদান রেখে চলেছে। আশা করছি আগামীতেও জিআইবি সিএসআর খাতসহ বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেবে।

আপন দেশ/টি/এবি

মন্তব্য করুন # খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, আপন দেশ ডটকম- এর দায়ভার নেবে না।

শেয়ার করুনঃ

জনপ্রিয়