Apan Desh | আপন দেশ

‘মিধিলি’র আঘাতে ৭ প্রাণহানি

আপন দেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৯:২৩, ১৮ নভেম্বর ২০২৩

‘মিধিলি’র আঘাতে ৭ প্রাণহানি

ছবি: সংগৃহীত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘মিধিলি’ শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) দেশের উপকূলে আঘাত হনেছে। এতে সাত জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এর প্রভাবে বরিশাল, বরগুনা, বাগেরহাট ও পিরোজপুরসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চলে দিনভর বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়া বয়ে যায়। বৈরী আবহাওয়ার কারণে এসব এলাকায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। 

বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। গাছপালা ভেঙে পড়ে। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে কয়েকটি স্থানে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কক্সবাজারের টেকনাফে দেওয়ালচাপায় একই পরিবারের চার জনের মৃত্যু হয়েছে। শরীয়তপুরের গোসাইরহাটে ঘরের ওপর গাছ পড়ে মারা গেছেন এক নারী। টাঙ্গাইলের বাসাইলে গাছের ডাল পড়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া মীরসরাইয়ের সোনাপাহাড় এলাকায় এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে ঝড়ের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠানামা বন্ধ করে দেয়া হয়। নদীপথে সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়। বরগুনা ও ভোলার মনপুরায় উত্তাল সাগরে দুটি ট্রলার এবং মোংলায় কয়লাবোঝাই একটি লাইটার জাহাজ ডুবে গেছে। খোঁজ মিলছে না ২০টি ট্রলারসহ কয়েকশ জেলের। টানা বর্ষণে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বোরো ও আমনের। 

শুক্রবার বিকাল ৪টায় আবহাওয়া অধিদফতরের বিজ্ঞপিতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘মিধিলি’ বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করেছে। উপকূলে আঘাত হেনে এটি দুর্বল হয়ে পড়ে। ফলে মোংলা ও পায়রা বন্দরে দেয়া সাত নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে তিন নম্বর দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার বন্দরেও ছয় নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে তিন নম্বর দেয়া হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড়ে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল পটুয়াখালীতে। বেলা ৩টায় সেখানে ঘণ্টায় ১০২ কিলোমিটার গতিতে বাতাস বয়ে যায়।

আমাদের প্রতিনিধিরা জানাচ্ছেন, কক্সবাজারের টেকনাফে বাড়ির দেওয়ালচাপায় একই পরিবারের চার জনের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড মরিচ্যাঘোনা পানিরছড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলেন, ওই এলাকার মোহাম্মদ ফকিরের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৫০), ছেলে শাহিদুল মোস্তফা (২০), মেয়ে নিলুফা ইয়াছমিন (১৫) ও সাদিয়া বেগম (১১)। তবে ভাগ্যক্রমে প্রাণে বেঁচে গেছেন মোহাম্মদ ফকির।

হ্নীলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাশেদ মোহাম্মদ আলী জানান, নিুচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার সারা দিন গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়। রাত আড়াইটার দিকে মোহাম্মদ ফকিরের মাটির তৈরি ঘরের দেওয়াল চাপা পড়ে তার স্ত্রী, দুই মেয়ে ও এক ছেলে মারা গেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারটিকে এক লাখ টাকা সহযোগিতা করা হয়েছে। এদিকে নিজে বেঁচে গেলেও স্ত্রী-ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের সবাইকে হারিয়ে পাগলপ্রায় মোহাম্মদ ফকির। তিনি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন।

শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার নাগেরপাড়া বালিকুড়ি গ্রামে বিকালে ঘরের ওপর গাছ পড়ে নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম জুলেখা বেগম (৬৫)। নাগেরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক খান এ তথ্য জানিয়েছেন।

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে দমকা হাওয়ায় টাঙ্গাইলের বাসাইলে গাছের ডাল পড়ে রাজ্জাক মিয়া (৪০) নামের এক কাপড় ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে বাসাইল উপজেলা পরিষদের গেটের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাজ্জাক মিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের মিরিকপুর গ্রামের কুসুম মিয়ার ছেলে। তিনি বাসাইলের কোটিপতি মার্কেটে কাপড়ের ব্যবসা করতেন।

স্থানীয়রা জানান, জুমার নামাজ পড়ে মোটরসাইকেলে বাসার দিকে যাচ্ছিলেন। তিনি উপজেলা পরিষদের গেটের সামনে আসলে গাছের ডাল মাথায় পড়লে সঙ্গে সঙ্গে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. নাঈম আব্দুল্লাহ বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

বাসাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া আক্তার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমরা নিহতের পরিবারের পাশে আছি।

চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ের সোনাপাহাড় এলাকায় ঘূর্ণিঝড় মিধিলির তাণ্ডবে আকাশমণি গাছের ডাল ভেঙে পড়ে আনোয়ার হোসেনের মেয়ে আরিয়া (৪) মারা গেছে।

আপন দেশ/আরএ

মন্তব্য করুন ।। খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত,আপন দেশ ডটকম- এর দায়ভার নেবে না।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়